Date: August 08, 2022

দৈনিক দেশেরপত্র

collapse
...
Home / সারাদেশ / ঢাকা / শ্রীপুরে ইউপি সদস্যকে লাথি মারার অভিযোগ আ.লীগ সভাপতির বিরুদ্ধে - দৈনিক দেশেরপত্র - মানবতার কল্যাণে সত্যের প্রকাশ

শ্রীপুরে ইউপি সদস্যকে লাথি মারার অভিযোগ আ.লীগ সভাপতির বিরুদ্ধে

July 14, 2022 09:02:32 PM  
শ্রীপুরে ইউপি সদস্যকে লাথি মারার অভিযোগ আ.লীগ সভাপতির বিরুদ্ধে

শাহাদত হোসাইন, শ্রীপুর সংবাদদাতা:
গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গোসিংগা ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য আসাদুজ্জামান সবুজকে জনতার সামনে লাথি মারার অভিযোগ উঠেছে একই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রিপন সরকারের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) ইউপি সদস্য সবুজ বাদী হয়ে শ্রীপুর থানায় এবং  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন। এরআগে গত বুধবার (১৩ জুলাই) রাত সাড়ে নয়টার দিকে উপজেলার গোসিংগা ইউনিয়নের নারায়ণপুর ঈদগাঁ মাঠ মার্কেটে এ ঘটনা ঘটে।

ইউপি সদস্য আসাদুজ্জামান সবুজ জানান, ‘গত ৫ বছর ধরে স্থানীয় মল্লিকা নামের এক নারীর সাথে ওয়ারিশ নিয়ে চাচাতো ভাই আতাউর নামের এক ব্যক্তির দ্বন্দ্ব রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আগের মেম্বার দীর্ঘদিন চেষ্টা করেছে। আমি নতুন করে দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই ওই ঘটনা পুরোপুরি না জানার কারনে এ নিয়ে বসতে সময় লাগবে জানানোর কারনে।  এছাড়াও কিছুদিন আগে ওই নারীকে মারধর করায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগীতা চাওয়া হয়। কিন্তু ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রিপন সরকার ওই বিষয়ে ফয়সালা দেওয়ার জন্য আমাকে চাপ দিতে থাকে। উনার বাড়ির পাশের ঘটনা থাকায় বিষয়টি তাঁকেই সমাধানের জন্য আমি অনুরোধ করি। এ নিয়ে বুধবার বিকেলে রিপন সরকারের সাথে আমার সবশেষ কথা হয়। একই দিন রাতে নারায়ণপুর ঈদগাঁ মাঠ মার্কেটে আমার ব্যক্তিগত অফিস থেকে রিপন সরকার তাঁর লোকজন শুভ সরকার, মুকুল সরকার, আতাউর,সুলতান, হুমায়ুনসহ আরও অজ্ঞাত কয়েকজন দিয়ে আমাকে টেনে-হেঁছরে মান্নান মেম্বারের রুমের দিকে নিয়ে যায়। সেখানে কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই রিপন সরকার আমাকে লাথি মেরে ফেলে দেয়। এরপর তাঁর সাথে থাকা লোকজন আমাকে এলোপাতাড়ি কিল ঘুষি মারতে থাকে। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে।’

লাথি মারার বিষয়টি অস্বীকার করে গোসিংগা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি রিপন সরকার বলেন, ‘বারবার বলার পরও ওই ঘটনার সালিশ করেনি ইউপি সদস্য আসাদুজ্জামান সবুজ।  ওই বিষয়ে জিজ্ঞেস করতেই তিনি আওয়ামীলীগ দল সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করে। পরে রাতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাকে ওই মন্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে তাদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা হলে আমি মেম্বারকে সে স্থান থেকে সরিয়ে নিতে এগিয়ে যাই। সামান্য বিষয়টি একটি মহল বড় করে আমার মানহানি করতেছে।

এ ঘটনার বিচার দাবী করে স্হানীয়রা বলেন, বড় একটি পদে থেকে একজন জন প্রতিনিধিকে প্রকাশ্যে এভাবে মারধর কোনোভাবে গ্রহনযোগ্য নয়। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ বিচার দাবী করছি।

এ বিষয়ে গোসিংগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছাইদুর রহমান শাহীন মোড়ল বলেন, ইউপি সদস্য সবুজের কাছে জানতে পেরেছি সভাপতি সাহেব ও তার কয়েকজন লোক নিয়ে সবুজকে মারধর করেছে। তবে একজন ইউপি মেম্বারকে মারধর করা অবশ্যই দুঃখজনক ও ন্যাক্কারজনক ঘটনা।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডঃ হারুন উর রশিদ বলেন, ইউপি মেম্বারকে মারধরের ঘটনাটি জানার পর গোসিংগা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, বিচার না করে ইউপি সদস্য চলে যেতে চাইলে অন্যান্যরা তাকে মারধর করতে চাইলে তিনি মেম্বারকে তাদের কবল থেকে রক্ষা করেছেন।

শ্রীপুর থানার ওসি (তদন্ত)  মাহফুজ ইমতিয়াজ ভূইয়া জানান, এ বিষয়ে ইউপি সদস্য একটি অভিযোগ দিয়েছেন।তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তরিকুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্তের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।