Ultimate magazine theme for WordPress.

বঙ্গবন্ধু সেতুতে তীব্র যানজট, আপাতত বন্ধ ঢাকায় প্রবেশের পথ

শেষ মুহূর্তের ঈদ যাত্রায়ও ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে তীব্র যানজটে পড়েছে ঘরমুখো মানুষ। মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে কয়েকটি দুর্ঘটনা ও পরিবহন বিকল হওয়ায় এ যানজটের সৃষ্টি হয়। ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি মেরামত ও সরাতে সময় লাগায় পরিবহনের দীর্ঘ সারি তৈরি হয়।

যানজট কমাতে ঢাকায় গাড়ি প্রবেশ আপাতত বন্ধ রাখা হয়েছে। পথটি দিয়ে ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গ অভিমুখে গাড়ি বের করার ব্যবস্থা করছে পুলিশ। আপাতত এক লেনে চলছে গাড়ি।

মঙ্গলবার রাত ৯ টায় বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব টোল প্লাজা থেকে ঘারিন্দা পর্যন্ত পৌনে এক ঘন্টা পরিবহনগুলোকে ঠায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। এদিন গতকাল মধ্যরাত থেকে আজ সকাল পর্যন্ত কয়েক দফা টোল আদায় বন্ধ, সারাদিনে কয়েকটি পরিবহন বিকল ও দুর্ঘটনা হওয়ায় সারাদিনই থেমে থেমে পরিবহন চলাচল করে।

মঙ্গলবার সারাদিন এলেঙ্গা থেকে টাঙ্গাইলের রাবনা বাইপাস পর্যন্ত থেমে থেমে যানবাহন চলাচল করছে। রাবনা বাইপাস থেকে টাঙ্গাইলের করোটিয়া পর্যন্তও মহাসড়কে গাড়ি থেমে থেমে চলছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে যাত্রী ও চালকেরা।

ঢাকা থেকে ভূঞাপুরের উদ্দেশ্যে কয়েক গুণ বেশি ভাড়া গুণে সপরিবারে ফেরা লোকমান জানান, ১০ ঘন্টায় রসুলপর পর্যন্ত এসে হেটে সংযোগ সড়কে গিয়ে ইজিবাইক বা সিএনজিতে বাড়ি যাবো।

মহাসড়কে দায়িত্ব পালনরত ট্রাফিক সার্জেন্ট মুশফিক জানান, গতকাল বিকেলে পোশাক কারখানা ছুটি হওয়ার মহাসড়কে পরিবহনের সংখ্যা স্বাভাবিকের থেকে কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

এলেঙ্গা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াসির আরাফাত জানান, মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে গাড়ি বিকল ও দুর্ঘটনা ঘটে। ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি সরাতে সময় লাগার কারণে সড়কে পরিবহনের চাপ বেড়ে গেছে। তবে দুর্ঘটনায় হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি। পরিবহন চলাচল স্বাভাবিক করতে পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। কয়েক ঘন্টার মধ্যে পরিবহন চলাচল স্বাভাবিক হবে বলে আশা করেন তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.