Ultimate magazine theme for WordPress.

করোনা মহামারির মধ্যেই ‘শঙ্কার ঈদ’ আজ

দেশেরপত্র রিপোর্ট:
মাত্র বছর দুয়েক আগেও কি এমন একটি ঈদের কথা ভাবতে পেরেছিলো কেউ! কেউ কি চিন্তাও করতো ঈদের আগের দিনও করোনার থাবায় দুইশত মৃত্যুর খবর শুনতে হবে তাদেরকে! এই সেদিনও যেই প্রিয়জনের বাড়ি ফেরার অপেক্ষায় ছিলেন যিনি তিনিও কি ভাবতে পেরেছিলেন মহামারির ভয়ানক ছোবল তাকেও করে দিবে প্রিয়জনহারা! খোলা বাতাসে নিশ্বাস নিতে হবে মাস্কের আবরণের মধ্য দিয়ে কিংবা ঈদের জামাত আদায়ে থাকতে হবে বিশেষ সচেতন। কে জানে আজ ঈদের দিনে কতজনের মৃত্যুর সংবাদ ম্লান করে দিবে আমাদের ‘ঈদ আনন্দ’। এসবকিছুই ভুলে যেতে চাই আমরা। আবারও সুস্থ-স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরুক আমাদের প্রিয় জন্মভূমি। পৃথিবী হোক শান্ত। জীবন-জীবিকা হোক স্বাচ্ছন্দ্যময়। এই প্রার্থনায় আজ সারাদেশে পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। করোনা মহামারিসহ সকল দুর্যোগ-দুঃসময় কেটে যাক- স্রষ্টার দরবারে আজ এই প্রার্থনাই থাকবে পুরো মুসলিম বিশ্বের।

করোনা আমাদের জীবনে বদলে দিয়েছে অনেক কিছু। স্বাভাবিক জীবনযাত্রা গেছে থমকে। এক মহামারি ভাইরাস কেড়ে নিচ্ছে অনেকের জীবন, বিচ্যুত হচ্ছে অনেকের জীবিকা। উৎসবের আনন্দও ম্লান হয়ে গেছে করোনার থাবায়। তবু ঈদ আসে, উৎসব আসে। অনেকে বড়বেলায় ঈদের আনন্দ খোঁজেন ফেলে আসা ছোটবেলার ঈদে। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে অর্থনীতির চাকা ঘুরছে মন্দাবস্থায়। ক্রমবর্ধমান বেকারদের সংখ্যা বৃদ্ধি, শ্রমিক-কর্মচারীদের ঈদ ছুটি, বাড়ি ফেরা সবকিছু ছাপিয়ে গেছে দুশ্চিন্তায়। টানা দুই সপ্তাহের ‘কঠোর লকডাউন’ এর বার্তা তাদের ঈদের আনন্দকে অনেকটাই ফ্যাকাশে করে দিবে। উৎপাদনমুখী কলকারখানার মালিকরাও রয়েছেন দুশ্চিন্তায়।

এক বছরের বেশি সময় ধরে চলা করোনা সংকটের মধ্যে চতুর্থ ঈদ উদযাপিত হচ্ছে আজ। দুশ্চিন্তা যতই থাকুক, দুর্যোগ-দুর্ভিক্ষ যতই হানা দিক মুসলমানদের ঘরে ঘরে আজ ঈদের আনন্দ ঝলমল করবে এটাই স্বাভাবিক। যথাযোগ্য ভাবগাম্বীয ও ধর্মীয় মর্যাদায় আজ ঈদ উদযাপিত হচ্ছে দেশব্যাপী। কোরবানির ত্যাগের শিক্ষা হোক এই পরিস্থিতি মোকাবিলার অনুপ্রেরণা।

আরবি ‘ঈদুল আজহা’ শব্দের অর্থ কোরবানি বা ত্যাগের উৎসব। মুসলিমদের ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, হযরত ইবরাহীম (আ.) সৃষ্টিকর্তার আদেশ পালনের উদ্দেশ্যে প্রাণপ্রিয় পুত্র হযরত ইসমাঈল (আ.)-কে তার সম্মতিতে কোরবানি করতে উদ্যত হন। কিন্তু আল্লাহ তার সংকল্পে সন্তুষ্ট হয়ে হযরত ইবরাহীম (আ.)-কে পুত্রের স্থলে একটি পশু কোরবানির আদেশ দেন। এরপর থেকে মুসলিমরা প্রতি বছর আত্মত্যাগের প্রতীক হিসেবে পশু কোরবানি দিয়ে আসছেন। জিলহজ মাসের দশম দিনে পশু কোরবানি করা পবিত্র হজেরও অনিবায্য অঙ্গ।

ঈদ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসী ও সারাবিশ্বের মুসলমানদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। পৃথক বাণীতে তারা মুসলিম উম্মাহর অব্যাহত শান্তি, সমৃদ্ধি ও মঙ্গল কামনা করেছেন।

এদিকে সারাদেশে বিভাগ, জেলা, উপজেলা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ এবং সরকারি সংস্থাসমূহের প্রধানগণ জাতীয় কর্মসূচির আলোকে নিজ নিজ কর্মসূচি প্রণয়ন করে ঈদ উদযাপন করবেন। এছাড়াও বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার ও বেসরকারি গণমাধ্যমসমূহ যথাযোগ্য গুরুত্ব সহকারে বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার ও সংবাদপত্রসমূহে বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ করবে। ঈদ উদযাপন উপলক্ষে দেশের সকল হাসপাতাল, কারাগার, সরকারি শিশু সদন, বৃদ্ধাশ্রম, মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে। বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও মিশনসমূহে যথাযথভাবে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করা হবে। এ উপলক্ষে সারাদেশে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রক্ষার্থে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কোরবানীকৃত পশুর রক্ত বা বর্জ্য পদার্থ দ্বারা যাতে পরিবেশ দুর্গন্ধময় না হয় সে বিষয়ে সকল প্রকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনসহ দেশের সকল স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান।

কর্মস্থলেই ফ্রন্ট-লাইন যোদ্ধারা:
আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও স্বাস্থ্য সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার ছুটি আগেই বাতিল করা হয়েছে। ফলে এবারের ঈদে তারা কর্মস্থলেই থাকছেন। কোভিড পরিস্থিতির কারণে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের অধিকাংশই হাসপাতালে কর্মরত আছেন আজ।

ঈদের জামাত আদায়ে বিশেষ নির্দেশনা:
কোরবানির ঈদ উপলক্ষে চলমান লকডাউন শিথিল করেছে সরকার। তবে ঈদুল আজহার নামাজ স্বাস্থবিধি মেনে শর্তসাপেক্ষে ঈদগাহ, খোলা জায়গা ও মসজিদে আদায় করা যাবে বলে জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশনা জারি করা হয়। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ঈদ জামাত আদায়ে স্বাস্থ্যবিধি পরিপূর্ণভাবে মানতে হবে। মসজিদগুলোতে কার্পেট বিছানো যাবে না। জামাতের আগে-পরে মেঝে ভালোভাবে পরিস্কার করতে হবে। প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসা থেকে ওযু করে আসতে হবে। জামাত অনুষ্ঠানের প্রবেশমুখে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখা বাধ্যতামূলক। পরিধান করতে হবে মাস্ক। নামাজ আদায়ের সময় কাতার করতে বজায় রাখতে হবে সামাজিক দূরত্ব। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ঈদুল আজহায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে অনুষ্ঠিত হবে ৫টি ঈদ জামাত। সকাল ৭টায় হবে প্রথম জামাত। এরপর পর্যায়ক্রমে ৮টা, ৯টা, ১০টা এবং ১০টা ৪৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত হবে শেষ ঈদ জামাত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদ মসজিদুল জামিআয় পবিত্র ঈদুল আযহার জামাত সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.